Dhaka, Tuesday, 26 May 2020

অবনী আনন্দ বিদ্যালয়: একটি স্বপ্নের বাস্তবায়ন

2020-01-02 18:34:29
অবনী আনন্দ বিদ্যালয়: একটি স্বপ্নের বাস্তবায়ন

সুখবর প্রতিবেদক: অনেক দিন ধরেই স্বপ্ন ছিল তৃণমূল পর্যায়ের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য কিছু করার। অবশেষে বাস্তবায়িত হতে চললো সেই স্বপ্ন। শিশুদের জন্য ময়মনসিংহের প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্থাপন করলেন স্কুল। যেখানে এখন লেখাপড়া করছে প্রায় ৫০টি শিশু। তাদের স্কুল ড্রেস, বই-খাতা, পেন্সিল, ড্রইং খাতা, রং পেন্সিল, রাবারসহ শিক্ষা উপকরণ বিনামূল্যে দিয়ে আসছেন। দুপুরে খাবারও দেয়া হয় শিক্ষার্থীদের।

স্কুলটির নাম ‘অবনী আনন্দ বিদ্যালয়’। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার রাধাকানাই দুরদুরি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত রাধাকানাই গ্রামে ২০১৭ সালে স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেন ব্যবসায়ী, সমাজ সেবক, বিদ্যানুরাগী খোকন কুমার রায়। যিনি আরএসকে মার্কেটিং লি:-এর অন্যতম সত্ত্বাধিকারী ও পরিচালক। এছাড়াও তিনি সৃজনশীল প্রোডাকশন হাউস ‘প্লাটফর্ম মিডিয়া’ও ‘স্টোরিটেলার’এর সত্ত্বাধিকারী এবং সুখবর ও ফার্মা টাইমস-এর সম্পাদক ও প্রকাশক।

স্কুলটিতে এখন তিনটি ব্যাচে ছাত্র-ছাত্রী আছে। প্লে, নার্সারী এবং ওয়ান। ২০১৭ সালে যে সব শিশু প্লে তে ভর্তি হয়েছিল তারা এবার ওয়ানে উঠেছে। এসব শিশুদের কারো বাবা দিন মজুরের কাজ করেন, কেউ বা ভ্যান চালান, কেউ ছোটখাটো ব্যবসা করেন।

সারা দেশের সব স্কুলের সাথে তাল মিলিয়ে গত ১ জানুয়ারি, ২০২০ বুধবার অবনী আনন্দ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদেরও বই দেয়া হয়। পাশাপাশি ইউনিফর্ম, নতুন স্কুল ব্যাগ, খাতা, পেন্সিলসহ প্রয়োজনীয় সব শিক্ষা উপকরণ দেয়া হয়েছে। ছোটদের উপযোগী বল ও ক্রিকেট সামগ্রীও দেয়া হয়েছে। এসব উপকরণ পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়েছে শিশুরা।

বই বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাধাকানাই ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, এটা খুবই মহৎ উদ্যোগ। এই ইউনিয়নের দরিদ্র পরিবারের শিশুরা এতে উপকৃত হচ্ছে। এটা অত্যন্ত আনন্দের এবং উৎসাহব্যাঞ্জক। খোকন কুমার রায়ের মতো সামর্থ্যবানরা সবাই এভাবে এগিয়ে এলে আমাদের দেশ আরো অনেক এগিয়ে যাবে।

স্কুলটিতে যাতায়াতের রাস্তা খুবই খারাপ। কাঁচা রাস্তাটি উন্নয়নের বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা বিশিষ্ট কৃষিবিদ ড. আবু বকর সিদ্দিক বলেন, আজকে এই অনুষ্ঠানে থাকতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। মানুষের জন্য কিছু করতে পারার মতো আনন্দ আর কিছু হতে পারে না। তিনি এর সাফল্য কামনা করেন।

খোকন কুমার রায় বলেন, আসলে ভালোলাগা ও ভালোবাসা থেকেই এসব করছি। অনেকদিন ধরেই এমন স্বপ্ন ছিল। বলতে পারেন এটা স্বপ্নের বাস্তবায়ন। ওরা যতোদিন পড়তে চায় আমি পড়াবো। ওরা যদি মাস্টার্স পর্যন্ত পড়ে, এমনকি এমফিল, পিএইচডি করে তাহলেও আমি সাপোর্ট দিয়ে যাবো। ওদের জন্য কিছু করতে পারাটাই আমার আনন্দের জায়গা।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সুখবর ও ফার্মা টাইমস-এর নির্বাহী সম্পাদক ইব্রাহীম খলিল জুয়েল, প্লাটফর্ম মিডিয়ার ডাবিং ডিরেক্টর সঞ্জয় গোস্বামী প্রমুখ।

স্কুলের শিশুরা ছড়া আবৃত্তি ও সমবেত সুরে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করে।





শিক্ষা ও শিক্ষালয় সর্বশেষ খবর

শিক্ষা ও শিক্ষালয় এর সকল খবর