Dhaka, Saturday, 15 August 2020

বারবার রূপ পরিবর্তন করেও শেষ রক্ষা হয়নি ধুরন্ধর সাহেদের

2020-07-15 10:44:55
বারবার রূপ পরিবর্তন করেও শেষ রক্ষা হয়নি ধুরন্ধর সাহেদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: অনেক রূপ পরিবর্তন করে, অনেক কৌশলের আশ্রয় নিয়ে, অনেক স্থান পরিবর্তন করেও শেষ রক্ষা হয়নি সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে বড় জালজালিয়াতি ও প্রতারণার ঘটনায় বহুল আলোচিত রিজেন্ট হাসপাতাল মামলার প্রধান আসামি সাহেদ করিমের। আজ বুধবার খুব সকালে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার পথে সাতক্ষীরা থেকে রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

আজ ভোর ৫টা ১০ মিনিটে সাতক্ষীরা সীমান্তের দেবহাটা থানার সাকড় বাজারের পাশে অবস্থিত লবঙ্গপতি এলাকা থেকে নৌকায় বোরকা পরে পালিয়ে থাকা অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। শাহেদকে সাতক্ষীরা স্টেডিয়াম থেকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়েছে।

সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী স্থানীয় একজন কালোবাজারির মাধ্যমে ডিঙ্গি নৌকায় চেপে ভারতে পালানোর চেষ্টা করছিলেন সাহেদ। ঠিক সেই সময় র‍্যাবের বিশেষ টিম অভিযান চালিয়ে তাকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে।

বোরকা পরে পালাচ্ছিলেন সাহেদ

রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান প্রতারক শাহেদ করিম বোরকা পরে পালিয়ে যাচ্ছিলেন বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক আশিক বিল্লাহ। আজ সকাল ৮টার দিকে সাতক্ষীরা স্টেডিয়ামে সংক্ষিপ্ত প্রেসব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান তিনি। এ সময় তার কাছে অস্ত্র ও তিন রাউন্ড গুলিও পাওয়া গেছে।

আশিক বিল্লাহ বলেন, ভোরে সীমানা অতিক্রম করে ভারতে যাবার পরিকল্পনা করছিলেন সাহেদ। আর তখনই তাকে ধরা হয়। তার কাছে একটা ম্যাগজিন, একটা পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি ও মোবাইল পাওয়া গেছে।

তিনি জানান, সাহেদ একটি নৌকায় বোরকা পরে ছিলেন যেন তাকে চেনা না যায়। নদীর পাড়ে ওঠার আগেই তাকে ধরা হয়েছে। তার কাছ থেকে কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। ঢাকায় ব্রিফিংয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

আশিক বিল্লাহ বলেন, সাহেদকে আমরা বিভিন্ন জায়গায় অনুসরণ করেই এখান থেকে ধরেছি। তিনি বারবার তার রূপ পরিবর্তন করেছেন। এর আগে তিনি তার সাদা চুল কালো করেছেন। দাড়িগোঁফ ফেলে দিয়েছেন। তবে তিনি সাঁতরিয়ে যেতে পারেননি। তিনি মোটা মানুষ তাই দৌড়াতেও পারেননি। তবে, নৌকার মাঝি সাঁতরিয়ে পালিয়ে গেছেন।

করোনার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা না করেই ভুয়া রিপোর্ট দেয়াসহ নানা অনিয়ম ধরা পড়ায় ৭ জুলাই রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখা বন্ধ করে দেয়া হয়।

এর পরপরই রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদকে প্রধান আসামি করে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা (মামলা নম্বর- ৫) করে র‌্যাব। এর মধ্যে সাহেদসহ ৯ জন গ্রেফতার হলেন।

মামলায় রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমকে প্রধান আসামি করে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয় এজাহারে। এরপর থেকেই পালিয়ে ছিলেন শাহেদ। তাকে গ্রেফতারে দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় র‌্যাব। অবশেষে সাতক্ষীরা থেকে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় তারা।

এরআগে, করোনার নমুনা পরীক্ষায় প্রতারণার একই অভিযোগে রিজেন্ট গ্রুপের এমডি মাসুদ পারভেজকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) সন্ধ্যার পর গাজীপুর থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।





অপরাধ ও দুর্নীতি সর্বশেষ খবর

অপরাধ ও দুর্নীতি এর সকল খবর