Dhaka, Tuesday, 11 August 2020

প্রকৃতির আশীর্বাদ অ্যালোভেরা : রোগ প্রতিরোধ, রূপচর্চা, সব কাজেই সেরা

2020-07-26 12:28:55
প্রকৃতির আশীর্বাদ অ্যালোভেরা : রোগ প্রতিরোধ, রূপচর্চা, সব কাজেই সেরা

লাইফস্টাইল প্রতিবেদক, সুখবর ডটকম: অ্যালোভেরা আমাদের কাছে একটি অতি পরিচিত উদ্ভিদ। অ্যালোভেরার বাংলা নাম ঘৃতকুমারী। এটি একটি কাণ্ডবিহীন রসালো এবং শাসযুক্ত গাছ। পাতা ১০-২০ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হয়। পাতার দুইপাশে কাঁটা থাকে এবং পাতা দেখতে অনেকটা চ্যাপ্টা আকৃতির। বহু বছর ধরে মানুষ অ্যালোভেরাকে ঔষধি গাছ হিসেবে ব্যবহার করে আসছে।

বহুগুণে গুণান্বিত এই উদ্ভিদের ভেষজ গুণের শেষ নেই। এতে আছে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, আয়রন, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, জিঙ্ক, ফলিক অ্যাসিড, অ্যামিনো অ্যাসিড ও ভিটামিন-এ, বি৬, বি২ ইত্যাদি।

অ্যালোভেরা পাতার ভেতরে থাকা জেল রুপচর্চা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য রক্ষায়ও ব্যবহার হয়ে আসছে। অনেকেই অ্যালোভেরার জুস পান করে থাকেন। অ্যালোভেরায় রয়েছে অসংখ্য বিস্ময়কর উপকারিতা..

১) হার্ট সুস্থ রাখতে অ্যালোভেরা : আপনার হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে অ্যালোভেরার শরবত। অ্যালোভেরা কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দেয়। এটি ব্লাড প্রেসারকে নিয়ন্ত্রণ করে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখে এবং রক্তে অক্সিজেন বহন করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। দূষিত রক্ত দেহ থেকে বের করে রক্ত কণিকা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। ফলে দীর্ঘদিন আপনার হৃদযন্ত্র সুস্থ থাকে।

২) মাংসপেশী ও জয়েন্টের ব্যথা প্রতিরোধ : অ্যালোভেরা মাংসপেশীর ব্যথা কমাতে সাহায্য করে থাকে। এমনকি ব্যথার স্থানে অ্যালোভেরা জেলের ক্রিম লাগালে ব্যথা কমে যায়।

৩) দাঁতের যত্নে অ্যালোভেরা : অ্যালোভেরার জুস দাঁত এবং মাড়ির ব্যথা উপশম করে থাকে। দাঁতে কোনো ইনফেকশন থাকলে তাও দূর করে দেয়। নিয়মিত অ্যালোভেরার জুস খাওয়ার ফলে দাঁত ক্ষয় প্রতিরোধ করা সম্ভব।

৪) ওজন হ্রাস করতে : ওজন কমাতে অ্যালভেরা জুস বেশ কার্যকরী। ক্রনিক প্রদাহের কারণে শরীরে মেদ জমে। অ্যালোভেরা জুসের অ্যাণ্টি ইনফ্লামেনটরী উপাদান এই প্রদাহ রোধ করে ওজন হ্রাস করে থাকে। পুষ্টিবিদগণ এই সকল কারণে ডায়েট লিস্টে অ্যালোভেরা জুস রাখার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

৫) হজমশক্তি বাড়াতে : হজমশক্তি বৃদ্ধিতে অ্যালোভেরা জুসের জুড়ি নেই। এটি অন্ত্রের উপকারী ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি করে অন্ত্রে প্রদাহ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া রোধ করে, যা হজমশক্তি বাড়িয়ে থাকে। পরিপাকতন্ত্রের নানা জটিলতা সারাতেও সাহায্য করে অ্যালোভেরা। ডায়রিয়ার বিরুদ্ধেও এটি ভালো কাজ করে।

৬) ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে : অ্যালোভেরা জুস রক্তে সুগারের পরিমাণ ঠিক রাখে এবং দেহে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখে। ডায়াবেটিসের শুরুর দিকে নিয়মিত এর জুস খাওয়া গেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।

৭) ত্বকের যত্নে অ্যালোভেরা : ত্বকের যত্নে অ্যালোভেরার ব্যবহার সম্পর্কে আমরা সবাই জানি। অ্যালোভেরার অ্যান্টি ইনফ্লামেনটরী উপাদান ত্বকের ইনফেকশন দূর করে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা কমিয়ে দেয়।

৮) রোগ-প্রতিরোগ ক্ষমতা বৃদ্ধি : অ্যালোভেরা হলো অ্যান্টি ম্যাইকোবিয়াল এবং অ্যান্টি ফাঙ্গাল উপাদানসমৃদ্ধ একটি গাছ। অ্যালোভেরা জুস নিয়মিত পান করলে রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। এটি দেহে সাদা ব্লাড সেল গঠন করে যা ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে। এটি দেহের দূষিত উপাদান দূর করে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

৯) মুখের স্বাস্থ্য রক্ষা : অ্যালোভেরায় আছে ভিটামিন-সি, যা মুখের জীবাণু দূর করে মাড়ি ফোলা, মাড়ি থেকে রক্ত পড়া বন্ধ করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, অ্যালোভেরার জেল মাউথ ওয়াশ এর বিকল্প হিসেবেও ব্যবহার করা যায়।

১০) চুল সুন্দর করতে : মাথার খুশকি দূর করতে এর কোনো তুলনা নেই। এমনকি ঝলমল চুলের জন্যেও অ্যালোভেরা অনেক উপকারী। সুতরাং চুলের যত্নে অ্যালোভেরা আপনার নিত্যসংগী।

১১) মুখের ঘা সারাতে : অনেকের মুখে ঘা হয়, আর এই মুখের ঘা দূর করতে অ্যালোভেরা অত্যন্ত কার্যকরী। ঘায়ের জায়গায় এলোভেরার জেল লাগিয়ে দিলে ঘা ভালো হয়।

১২) ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক : গবেষণায় দেখা গেছে যে, অ্যালোভেরায় রয়েছে অ্যালো ইমোডিন, যা স্তন ক্যান্সার ছড়ানো থেকে রোধ করে। এছাড়াও অন্যান্য ক্যান্সার প্রতিরোধে অ্যালোভেরা অনেক কার্যকারী ভূমিকা রাখে।

১৩) রক্তচাপ কমাতে : অ্যালোভেরার অনেক গুণাগুণের মধ্যে আর একটি হলো রক্তচাপ কমাতে এর কোনো তুলনা নেই। অ্যালোভেরার ঔষধি গুণ রক্তচাপ কমায় এবং রক্তে কোলেস্টেরল ও চিনির মাত্রা স্বাভাবিক অবস্থায় আনতে সাহায্য করে।

১৪) চর্মরোগ ও ক্ষত সারাতে : বিভিন্ন চর্মরোগ ও ক্ষত সারায় এই অ্যালোভেরার জুস।

১৫) ক্লান্তি দূর করতে : দেহের দুর্বলতা দূর করতে অ্যালোভেরার জুসের গুণ অনেক। আপনি যদি অ্যালোভেরার জুস নিয়মিত পান করেন তাহলে দেহের ক্লান্তি দূর হবে এবং দেহকে সতেজ ও সুন্দর রাখবে।

১৬) কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে : অ্যালোভেরার জুসের মধ্যে যে জেল থাকে তার অনেক গুণ। এই জেল নিয়মিত পানে পেটের সমস্যা এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হবে। এছাড়া অ্যালোভেরা জেলে প্রায় ২০ রকম অ্যামিনো অ্যাসিড আছে যা ইনফ্লামেশন এবং ব্যাকটেরিয়া রোধ করে হজম সহজ ও বুক জ্বালাপোড়া রোধ করে থাকে।

সূত্র: পুষ্টিবিষয়ক বিভিন্ন প্রকাশনা।





স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সর্বশেষ খবর

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা এর সকল খবর