Dhaka, Tuesday, 24 November 2020

ঘুরে আসুন বিনোদন রাজ্য ‘ফ্যান্টাসি কিংডম’ 

2020-11-15 12:02:33
ঘুরে আসুন বিনোদন রাজ্য ‘ফ্যান্টাসি কিংডম’ 

ইব্রাহীম খলিল: করোনার এই দীর্ঘ সময়ে ঘরে বন্দী থেকে হাঁপিয়ে উঠেছে শিশু-কিশোররা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, সংক্রমণের শঙ্কায় খেলার মাঠেও যাওয়া যাচ্ছে না। সাবধান থাকার এই সময়টাতে বেড়াতে যাওয়াও হচ্ছে না।
তবে মুক্ত বাতাসে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে এবং হাঁপিয়ে উঠা জীবনে প্রাণ ফিরিয়ে আনতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঘুরতে যাওয়ার কোনো বিকল্প নেই। এ সময় দূরে কোথাও না গিয়ে ঢাকার আশপাশেই সপরিবারে ঘুরতে যাওয়া যায়। আর এ কথা ভাবলে সবার আগেই মাথায় আসবে শিশু-তরুণ-তরুণী সবার পছন্দের বিনোদন কেন্দ্র, ফ্যান্টাসি কিংডম থিম পার্কের কথা। করোনাকালীন ঝুঁকিমুক্ত বিনোদন উপহার দিতে ফ্যান্টাসি কিংডম কর্তৃপক্ষ নিয়েছে সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থা।
করোনার কারণে ২০ মার্চ থেকে ফ্যান্টাসি কিংডম বন্ধ থাকলেও গত ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে খুলে দেয়া হয়েছে।
ফ্যান্টাসি কিংডমের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এটি ঢাকার একেবারে কাছে আশুলিয়ায় অবস্থিত।
বিনোদনের সব সুযোগ-সুবিধা নিয়ে গড়ে ওঠা এই কমপ্লেক্সে রয়েছে ফ্যান্টাসি কিংডম, ওয়াটার কিংডম, এক্সট্রিম রেসিং (গো কার্ট) এবং রিসোর্ট আটলান্টিস- এই চারটি বিশ্বমানের বিনোদন কেন্দ্র।


ফ্যান্টাসি কিংডম:


বিশ্বমানের বিনোদন সেবা, চমৎকার ল্যান্ড স্কেপিং ও উত্তেজনাকর সব রাইডস নিয়ে তৈরি ফ্যান্টাসি কিংডম ইতোমধ্যে বিনোদন পিপাসু ছোট-বড় সকলের কাছে বিনোদনের স্বর্গরাজ্য হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। দুরন্ত গতিতে ছুটে চলা রোমাঞ্চকর অনুভূতি ও শিহরণ জাগানো রাইড রোলার কোস্টার এই পার্কের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাইডগুলোর অন্যতম। বিনোদনের স্বর্গরাজ্য এই ফ্যান্টাসি কিংডমের প্রিন্স আশু ও প্রিন্সেস লিয়া। এছাড়াও রয়েছে জায়ান্ট ফেরিস হুইল, জুজু ট্রেন, হ্যাপি ক্যাঙ্গারু, বাম্পার কার, ম্যাজিক কার্পেট, সান্তা মারিয়া, জিপ এ্যারাউন্ড, পনি এ্যাডভেঞ্চার, ইজি ডিজি-সহ ছোট বড় সবার জন্য মজাদার সব রাইডস।

কোথায় খাবেন


বিনোদন করতে এসে দর্শনার্থীদের রসনা বিলাসের জন্য রয়েছে তিন তারকা মানের রেস্টুরেন্ট ‘আশু ক্যাসল’ ও ‘ওয়াটার টাওয়ার ক্যাফে’। চমৎকার ও আকর্ষণীয় সব দেশী-বিদেশী খাবারের সমারোহ রয়েছে এই সব রেস্টুরেন্টগুলোতে। এছাড়াও পুরো পার্কের ভেতর ছড়িয়ে রয়েছে আরো অনেক ছোট ছোট ফুড কোর্ট। সেখানে পাবেন মুখরোচক খাবার ও ফাস্টফুড।


লিয়া কনভেনশন হল অ্যান্ড রেস্টুরেন্ট


এই রেস্টুরেন্টের খাবারে রসনা তৃপ্ত করতে পারেন। এছাড়া এটি বিয়ে, গায়ে হলুদ ও জন্মদিনের জন্য আকর্ষণীয় স্থান। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এই হলে কনফারেন্স, সেমিনারসহ সব ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজনের ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে রয়েছে ৪০০ গাড়ি পার্কিংয়ের সুবিধা।

ওয়াটার কিংডম:


সুবিশাল জলরাজ্যে বিনোদন এক অভাবনীয় সুযোগ, যা কিনা কনকর্ড ওয়াটার কিংডমেই সম্ভব। মাটির নিচ দিয়ে মনোমুগ্ধকর ও আকর্ষণীয় ভার্চুয়াল এ্যাকুরিয়াম টানেল পার হয়ে প্রবেশ করতে হয় ওয়াটার কিংডমে। কৃত্রিমভাবে সৃষ্ট সাগরের উত্তাল ঢেউ তৈরি করা ‘রাইড ওয়েভ পুল’ এই পার্কের সবচেয়ে আকর্ষণীয় রাইড। এছাড়াও এই পার্কে রয়েছে স্লাইড ওয়ার্ল্ড, ফ্যামিলি পুল, টিউব স্লাইড, লেজি রিভার, মাল্টি স্লাইড, ওয়াটার ফল, ডুম স্লাইড, লস্ট কিংডম, ড্যান্সিং জোনসহ মজাদার সব রাইডস।
দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে এই পার্কে রয়েছে পুরুষ ও মহিলাদের জন্য দু’টি আলাদা চেঞ্জ রুম ও লকারের ব্যবস্থা।


গিফট শপ, আইসক্রিম শপ


বিনোদনের এই রাজ্যে রয়েছে গিফট শপ। এগুলোতে পাওয়া যায় রকমারি সব গিফট। রয়েছে একাধিক ফুড কোর্ট ও আইসক্রিম শপ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

বছরের বিশেষ দিনগুলিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য পার্ক কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন বিনোদনমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। ঈদ উপলক্ষে পার্ক কর্তৃপক্ষ দর্শনার্থীদের জন্য আয়োজন করে ডিজে শো, ড্যান্স শো, গেম শো, র্যা ফেল ড্র, অ্যাক্রোব্যাট শো-সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের।

এক্সট্রিম রেসিং গো-কার্ট:


বাংলাদেশে প্রথম বারের মতো কনকর্ড এক্সট্রিম রেসিং নিয়ে এসেছে বিশ্বমানের গো-কার্ট রেসিং, যা কার রেসিং দুনিয়ার এক অনন্য সংযোজন। ছোট চার চাকার প্রায় মাটি ছুঁই ছুঁই এই রেসিং কারগুলি আপনাকে দিবে রেসিং এর এক অবিস্মরণীয় অভিজ্ঞতা। আন্তর্জাতিক মানের এই গো-কার্টগুলি ব্যবহৃত হয় ফর্মুলা ওয়ান বিজয়ী মাইকেল শুমাকার-এর ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে। অংশগ্রহণকারীদের গো-কার্ট চালানোর সুবিধার্থে রয়েছে দক্ষ প্রশিক্ষক। এছাড়াও এখানে গো-কার্ট চালানোর জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম যেমন- হ্যান্ড গ্লাভস, হেলমেট, রেসিং জ্যাকেট, রেসিং বুট ইত্যাদির ব্যবস্থা রয়েছে।
এই রোমাঞ্চকর রাইডটিতে চড়ে উপভোগ করুন প্রায় ৪০০ মিটার ট্র্যাক জুড়ে রেসিং-এর উত্তেজনাকর প্রতিটি মুহূর্ত। আপনার রেসিংকে আরো উপভোগ্য ও উত্তেজনাকর করে গড়ে তুলতে এখানে বাজবে ডিজে মিউজিক।

রিসোর্ট আটলান্টিস:


ব্যস্ত জীবনের কর্মমুখর দিনগুলির ক্লান্তি দূর করে, নিজেকে নতুনভাবে আবিষ্কার করতে শহরের বাইরে কোলাহলমুক্ত পরিবেশে অবস্থিত তিন তারকা বিশিষ্ট রিসোর্ট আটলান্টিস অতুলনীয়। আপনার ভ্রমণ ও একান্ত বিশ্রামকে মোহময় করে তুলতে আধুনিক জীবনের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিয়ে সুসজ্জিত হয়েছে রিসোর্ট আটলান্টিস। এই রিসোর্টে অবস্থানকালে আপনি ফ্যান্টাসি কিংডম, ওয়াটার কিংডম ও হেরিটেজ পার্কের মনোরম সৌন্দর্য ও রাইড উপভোগ করতে পারবেন। ইকোনমি, ডিলাক্স, সুপার ডিলাক্স ও স্যুইট এই চার ধরনের রুম রয়েছে এই রিসোর্টে।
এই রিসোর্টের আধুনিক সুযোগ-সুবিধার মধ্যে রয়েছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুম, কেবল টিভি, রেষ্টুরেন্ট, ক্রেডিট কার্ড সুবিধা, সাইবার ক্যাফে, টেলিফোন, কার পার্কিং, লন্ড্রি সার্ভিস, কনফারেন্স সেন্টারসহ আরো অনেক কিছু। এছাড়াও বিনোদনের জন্য রয়েছে ডলবি ডিজিটাল সাউন্ড সিনেমা হল, বিলিয়ার্ড, পুল ও এয়ার হকিসহ নানা রকম গেমের আয়োজন। রিসোর্ট আটলান্টিস-এ আগত অতিথিদের জন্য রয়েছে বার-বি-কিউ নাইট ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের চমৎকার সব আয়োজন।


স্বাস্থ্যবিধি পালন: নো মাস্ক, নো এন্ট্রি


ভ্রমণকারীদের স্বাস্থ্যের নিরাপত্তার ব্যাপারে ফ্যান্টাসি কিংডম সর্বদা সতর্ক। পার্কের প্রধান গেইট থেকেই স্বাস্থ্যসংক্রান্ত কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। যেমন- টিকিট কেনার সময় স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করে নেয়া, শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ করে নেয়া এবং মুখে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। মাস্ক ছাড়া প্রবেশ করা যাবে না।
ফ্যান্টাসি কিংডম পার্কের পুরো জায়গা, সব রাইড, বসার ও খাওয়ার স্থান এবং যেসব জায়গা সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়, সেই সব জায়গা পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা পরিষ্কার করে রাখেন। এমনকি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য রাইডে পাশাপাশি না বসে আলাদা বসার ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

সমস্যা থাকলেও পৃথিবী বসে নেই। নতুন পরিস্থিতির সাথে খাপখাইয়ে নিচ্ছে দ্রুত। নতুন করে বাঁচতে শিখতে হবে আমাদেরকেও।মেতে উঠতে হবে হাসি-আনন্দে।আপনার প্রিয় থিম পার্ক ফ্যান্টাসি কিংডমে এসে কিছু সুন্দর মুহূর্ত উপভোগ করে যেতে পারেন পরিবারের সবাইকে নিয়ে।

ফ্যান্টাসি কিংডম সম্পর্কে আরো জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করে দেখুন ভিডিওটি।





পর্যটন ও ভ্রমণ সর্বশেষ খবর

পর্যটন ও ভ্রমণ এর সকল খবর