সোমবার, ২৪শে জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১০ই আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএনপি-জামায়াত অপশক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান

নিউজ ডেস্ক

🕒 প্রকাশ: ০৫:৪২ অপরাহ্ন, ২১শে নভেম্বর ২০২৩

#

ছবি-সংগৃহীত

বিএনপি-জামায়াত হরতাল, অবরোধ দিয়ে জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। ২৮ অক্টোবরের পর থেকে রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে তারা ১৮৬টি বাস-ট্রাক আগুন দিয়ে পুড়িয়েছে। কেন? রাজনীতির সাথে আগুনের সম্পর্ক কী? এগুলো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। তারা গণতন্ত্রের রাজনীতি করে না। দেশের মানুষকে ভালোবাসে না, সংবিধানের প্রতিও আনুগত্য নেই। যার কারণে স্বাধীন বাংলাদেশে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে উন্নয়ন হচ্ছে তা তারা বাধাগ্রস্ত করতে চায়। নির্বাচন বানচাল করতে চায়। বিএনপি-জামায়াত নামক এই অপশক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়ানোর এখনই সময়।

২১ নভেম্বর, মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে ‘হরতাল-অবরোধ আর আগুন সন্ত্রাস: বন্ধ হোক এই অপরাজনীতি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। আলোচনা সভাটি যৌথভাবে আয়োজন করে গৌরব’৭১ ও স্বাধীনতা সাংবাদিক ফোরাম। 

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, বাসে-ট্রেনে আগুন দিয়ে, চোরাগোপ্তা হামলা করে রাষ্ট্রীয় কাজ থামানো যাবে না। এগুলো কোনো রাজনৈতিক কর্মর্সূচি নয়; এটা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। তারা ভেবেছে বাসে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে সম্পত্তি ধ্বংস করে বোধ হয় নির্বাচন বানচাল করা যাবে। নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী উৎসবমুখর পরিবেশে হবে। নির্বাচন বানচাল করা যাবে না। এসব কর্মকাণ্ডের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে সন্ত্রাসী হিসেবে আখ্যায়িত করে বিচার করা হবে। তার কী রাজনৈতিক সিল আছে সেটা দেখা হবে না। যারা আগুন দেয় তারা সন্ত্রাসী। এদেরকে সন্ত্রাসী হিসেবেই বিবেচনা করা হবে।

হানিফ বলেন, ২৮ অক্টোবরের পর থেকে বিএনপি-জামায়াত রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে ১৮৬টি বাস-ট্রাক পুড়িয়েছে। আপনারা গণতন্ত্রের কথা বলেন, মানবতার কথা বলেন, অন্যদিকে আগুন দিয়ে নিরীহ মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করেন, এটা কোন গণতন্ত্র, কোন মানবতা?

গণমাধ্যমের প্রতি আহবান জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, আপনরা খবরে বলেন, বাসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। কোন দুর্বৃত্ত? দুর্বৃত্ত শব্দটা কেন আসে? বাসে আগুন দিয়েছে বিএনপি নেতা-কর্মীরা। হাতেনাতে ধরা পড়েছে তারা। সিসিটিভিতে দেখা গেছে কারা আগুন দিয়েছে। গণমাধ্যমেই তো আমরা দেখেছি। এরপরও কেন বলেন দুর্বৃত্তরা আগুন দিয়েছে। বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীরা আগুন দিয়েছে এভাবে বলতে কেন আপনাদের শংকা হয়? কেন আপনারা বলেন না? তারা আগুন দিচ্ছে বলতে অসুবিধা কোথায়?

বিএনপির সঙ্গে সমমনা কিছু দল আছে, নামসর্বস্ব দল। তাদের নেতারা টকশোতে এসে ইনিয়ে বিনিয়ে বলার চেষ্টা করেন এটা বিএনপি নেতাকর্মীরা করেনি। সরকারের ওপরই দোষ চাপাতে চায়। মিথ্যাচারের একটা সীমা থাকে। আমি অবাক হয়ে যাই, এরা রাজনীতি করে জনগণের জন্য? যারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে আবার এদের পক্ষে সাফাইও গায়। লজ্জিত হওয়া উচিত। 

আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করবো যারা বাসে আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে, মানুষের সম্পত্তি ধ্বংস করে এদের পক্ষে যারা সাফাই গায় তাদের আইনের আওতায় এনে বিচার করার। 

আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, বিএনপি-জাময়াত গণতন্ত্রের রাজনীতি করে না। এই দল সৃষ্টি হয়েছিল স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি নিয়ে। তারা মানুষকে ভালোবাসে না, সংবিধানের প্রতি আনুগত্য নেই। এই স্বাধীনতা তারা চায়নি। যার কারণে স্বাধীন বাংলাদেশে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে উন্নয়ন হয়েছে তা তারা বাধাগ্রস্ত করতে চায়।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত হরতাল, অবরোধ দিয়ে জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। ২০১৩, ২০১৪ সালে যে আগুন সন্ত্রাস করেছিল ২৮ তারিখে আবার তাদের মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। চোরাগোপ্তা আক্রমণ করে আতঙ্ক সৃষ্টি করা যায় কিন্তু আন্দোলনে জয়ী হওয়ার ইতিহাস নেই। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী হবে। বিএনপি এই নির্বাচনে অংশ না নিলে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট সানজিদা খানম বলেন, ২৩ দিনে অবরোধের নামে ১৮৬টি গাড়ি পোড়ানো হয়েছে। কারা এই গাড়ি পুড়িয়েছে? যারা নির্বাচনে আসতে চায় না। পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায়। দেশকে অশান্ত করতে চায়। তাদের অবৈধভাবে জন্ম হয়েছে আর এজন্য তারা অবৈধভাবেই ক্ষমতায় আসতে চায়।

জনগণের প্রতি ক্ষোভ থেকে বিএনপি-জামায়াত গাড়ি পোড়াচ্ছে এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, জনগণ দ্বারা বারবার প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। নির্বাচনে প্রশ্নবিদ্ধ করাই তাদের উদ্দেশ্য। তারা তাদের জিঘাংসামূলক চেহারা, পুড়িয়ে মারার যে চেহারা ২৮ তারিখে আবার সেই চেহারা দেখানো শুরু করেছে। কিভাবে একজন পুলিশ সদস্যকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে এই গোষ্ঠী। আমরা যারা রাজনৈতিক কর্মী তারা মাঠে থেকে এই অপশক্তিকে প্রতিহত করবো।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ বলেন, আমরা গণতান্ত্রিক সমাজে বসবাস করছি। সবাই স্বাধীনভাবে মত প্রকাশ করবে এটা স্বাভাবিক। হরতাল, অবরোধ ডাকার অধিকার প্রতিটি রাজনৈতিক দলের আছে কিন্তু মানুষকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারার ক্ষমতা কাউকে দেয়া হয়নি। রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে বাসে আগুন দিয়ে ঘুমিয়ে থাকা মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করা হচ্ছে। এটা কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি হতে পারে না, এগুলো সন্ত্রাসী কর্মসূচি। 

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে যারা এই অপরাজনীতি করছেন, তাদেরকে এ ধরণের কর্মসূচি থেকে বেরিয়ে আসার জন্য আহবান জানাই। 

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি মানিক লাল ঘোষ বলেন, ২০১৪ সালে আমরা তাদের অগ্নিসংযোগ দেখেছি। তারা অগ্নিসংযোগ কেন করে? কারা করে? জনগণের বিরুদ্ধে কারা অবস্থান নেয়? যারা কোনদিনই দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী নয়, গণতন্ত্রে বিশ্বাসী নয়। তিনি বলেন, যখনই নির্বাচন আসে তখনি তারা এটা করে। গণতান্ত্রিক ধারায় দেশ এগিয়ে যেতে চায় তখনই সেই অগ্রযাত্রাকে দাবিয়ে দেয়ার জন্য তাদের অপচেষ্টা শুরু হয়। যারা উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করে সাধারণ মানুষর ক্ষতি করতে চায়, আসুন সবাই মিলে তাদের প্রতিহত করি।

আলোচনা সভার শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন গৌরব’৭১-এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন। তিনি বলেন, আমরা বাসে চড়ে অফিসে কিংবা বাসায় নিরাপদে পৌঁছাতে চাই। কিন্তু বিএনপি-জামায়াতের বাস আগুন দেয়ার ঘটনায় আজ মানুষ শঙ্কা নিয়ে গাড়িতে ওঠে। আমরা তাদের অবরোধের আগুনে ঝলসে যেতে চাই না। আমাদের নিরাপত্তা কে দিবে? 

তিনি বলেন, আমরা দেখছি বিদেশি শক্তির ইশারায় স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করছে। তারা ২৮ অক্টোবর রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান পুলিশ সদস্যকে হত্যা করেছে। ৩০ জনের বেশি সাংবাদিককে আহত করা হয়েছে।  আমরা এই রাষ্ট্র চাইনি। এই বিএনপি-জামায়াত অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়ানোর এখনই সময়।

সভা সঞ্চালনা করেন স্বাধীনতা সাংবাদিক ফোরাম নেতা ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আলম। 

আরো পড়ুন: গোপালগঞ্জ-১ আসনে মনোনয়ন কিনলেন সাবেক ছাত্র নেতা মিহির ঘোষাল

এর আগে আলোচনা সভার শুরুতে বিএনপি-জামায়াতের অবরোধে দেয়া আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত অন্তত দশজন বাস মালিক ও শ্রমিক নিজেদের অবস্থার কথা তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন। এসময় তারা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

এর মধ্যে বোরাক পরিবহনের চালক মিরাজ হোসেন বলেন, রাত ১০টার দিকে আমার গাড়িতে আগুন দিয়েছে। আমি নিঃস্ব হয়ে গেছি। গাড়ি পুরা কঙ্কাল হয়ে গেছে। একেবারে শেষ হয়ে গেছি। এমনভাবে পুড়েছে ঠিক করাও যাচ্ছে না। আমি খুব নিঃস্ব, অসহায়।

শিকড় পরিবহনের মালিক লিটন মিয়া বলেন, মিরপুর-১১ পার হওয়ার পর আমার গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে। তারা যাত্রীবেশে আগুন লাগিয়ে পালিয়ে গেছে। গাড়ির সবকিছুই পুড়ে গেছে। আমার ইনকাম সোর্স বন্ধ হয়ে গেছে। 

অছিম পরিবহনের মালিক সাইদুর রহমান বলেন, ২৯ তারিখ রাত তিনটায় খবর পাই গাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আমার দুইটা স্টাফ গাড়ির ভেতর ছিল। দুই মিনিটে গাড়িটা পুড়ে গেছে। একজন মরে কয়লা হয়ে গেছে। আরেকজন ৬০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তাদের পরিবারের অবস্থাও খারাপ। আর্থিক সহায়তা পাওয়ার কথা ছিল কিন্তু এখনো পাইনি।

এসি/ আই.কে.জে/

জামায়াত 'বিএনপি

খবরটি শেয়ার করুন