বৃহঃস্পতিবার, ২৫শে জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১০ই শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আজ আইএমএফের বৈঠক, তৃতীয় কিস্তির ঋণ পেতে পারে বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক

🕒 প্রকাশ: ০৩:২২ অপরাহ্ন, ২৪শে জুন ২০২৪

#

ছবি: সংগৃহীত

আমেরিকার ওয়াশিংটনে সোমবার (২৪শে জুন) বৈঠকে বসবে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। বৈঠকে বাংলাদেশকে ঋণের তৃতীয় কিস্তি দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা হবে। সেখানে নির্ধারণ হবে বাংলাদেশকে দেওয়া ঋণের ছাড়ের বিষয়টি।

ঋণের তৃতীয় কিস্তি দিতে ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ সফর করে গেছে আইএমএফ প্রতিনিধি দল। সবকিছু ঠিক থাকলে ৪ দশমিক ৭০ বিলিয়ন ঋণের তৃতীয় কিস্তির ১ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলার আইএমএফ অনুমোদন করবে।

সর্বশেষ আইএমএফ চলতি জুনে রিজার্ভ সংরক্ষণের মাত্রা নির্ধারণ করে দিয়েছে ১৪ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলার। কিন্তু গত সপ্তাহে নিট ব্যবহারযোগ্য রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ১৩ ডলারের কিছুটা ওপরে।  

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রদর্শিত ১৯শে জুন পর্যস্ত আইএমএফের হিসাব পদ্ধতি বিপিএম-৬ অনুযায়ী, রিজার্ভের পরিমাণ ছিল এক হাজার ৯৫২ কোটি ৮০ লাখ (১৯.৫২ বিলিয়ন) ডলার এবং বৈদেশিক মুদ্রায় গঠিত বিভিন্ন তহবিলসহ মোট রিজার্ভের পরিমাণ ছিল দুই হাজার ৪১৬ কোটি ১৪ লাখ (২৪.১৬ বিলিয়ন) ডলার।  

আরো পড়ুন: চার বছরে বাংলাদেশকে ২০.৮ বিলিয়ন ডলার ঋণ দেবে এডিবি

সেখান থেকে চলতি দায় বাবদ ৫ দশমিক ২৪ বিলিয়ন বাদ দিলে ব্যয়যোগ্য রিজার্ভ দাঁড়ায় ১৩ দশমিক ২৮ বিলিয়ন ডলার। যা আইএমএফের বেঁধে দেওয়া লক্ষ্য ১৪ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলার থেকে প্রায় ১ দশমিক ৫২ বিলিয়ন ডলার কম।

নিট রিজার্ভের শর্টফলের বিষয়টি আইএমএফ জানে। জানার পরও তারা বাংলাদেশের ঋণের তৃতীয় কিস্তিটি পাবে বলে মনে করছেন আইএমএফের সাবেক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বাংলাদেশে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, আইএমএফ বোর্ড বাংলাদেশকে দেওয়া ঋণের তৃতীয় কিস্তি ছাড় করবে বোঝা যাচ্ছে। তারা যদি ঋণের কিস্তি ছাড় না করতো তাহলে এটা নিয়ে আজকের বৈঠক হওয়ার কথা নয়; তারা আগেই বাতিল করে দিত। আজকে বৈঠকে তুলবে তার মানে হলো তারা কিস্তি ছাড় করবে। আমার অভিজ্ঞতা তাই বলে।

তিনি আরও বলেন, এটা একটি ঋণ; এটা দায়। এমন নয় যে এটা ঋণ নয়। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সূচকগুলোর তাদের পর্যালোচনা করার পরও ঋণের কিস্তি ছাড় করার যৌক্তিক কারণ আছে। আজ বাংলাদেশে দিন শেষে ওয়াশিংটনে আইএমএফ বৈঠকে বসবে। আশা করা যায় তারা ওই বৈঠকে এটা ছাড় করতে অনুমোদন করবে এবং এই মাসের মধ্যেই ঋণের কিস্তির অর্থ বাংলাদেশ পেয়ে যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, আইএমএফের শর্ত অনুযায়ী রিজার্ভ সংরক্ষণের কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন করেছে; রিজার্ভ আইএমএফ নির্ধারিত মাত্রার কাছাকাছি আছে। আশা করা যাচ্ছে আইএমএফের ঋণের তৃতীয় কিস্তি দেবে।

এইচআ/  


বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)

খবরটি শেয়ার করুন