শনিবার, ১৩ই এপ্রিল ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৩০শে চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গাজায় রমজানের আগেই যুদ্ধবিরতি হতে পারে: মিশর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

🕒 প্রকাশ: ১০:২০ পূর্বাহ্ন, ২রা মার্চ ২০২৪

#

ছবি: সংগৃহীত

ক’দিন পরেই বিশ্বব্যাপী শুরু হবে পবিত্র মাহে রমজান। আসন্ন রমজানের আগেই প্যালেস্টাইনের গাজা উপত্যকায় যুদ্ধবিরতি হতে পারে বলে জানিয়েছে মিসর।

শুক্রবার (১লা মার্চ) এই আশাবাদ জানিয়েছেন ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধের অন্যতম মধ্যস্থতাকারী দেশ মিসরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামেহ শৌকরি।

আন্তর্জাতিক জোট আনতোলিয়া ডিপ্লোমেসি ফোরামের সম্মেলনে যোগ দিতে বর্তমানে তুরস্কে রয়েছেন শৌকরি। সেখানে এক ভাষণে তিনি বলেন, আমি আপনাদের বলতে পারি যে এই যুদ্ধের সব পক্ষ, অর্থাৎ আমরা সবাই এরই মধ্যে সমঝোতার একটি পয়েন্টে পৌছাতে পেরেছি। আশা করছি, রমজানের আগেই গাজায় যুদ্ধবিরতি এবং জিম্মি হস্তান্তর শুরু হবে।

চলতি মার্চের ১২ কিংবা ১৩ তারিখে শুরু হতে যাচ্ছে রমজান। সামেহ শৌকরি বলেন, প্রস্তাবিত চুক্তি অনুযায়ী গাজায় যুদ্ধবিরতি শুরু হতে পারে আগামী ১০ কিংবা ১১ই মার্চ। এই যুদ্ধবিরতি হলে ৪০ দিনের জন্য গাজায় অভিযান বন্ধ রাখবে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ) এবং সেখানে প্রতিদিন প্রবেশ করবে অন্তত ৫০০ ত্রাণ ও খাদ্যপণ্যবাহী ট্রাক। বিনিময়ে নিজেদের কব্জায় থাকা জিম্মিদের মধ্যে থেকে ৪৫ জনকে মুক্তি দেবে উপত্যকার নিয়ন্ত্রণকারী গোষ্ঠী হামাস।

যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজাবাসীর জন্য এখন বিপুল পরিমাণ খাদ্য, চিকিৎসাপণ্য ও অন্যান্য ত্রাণ প্রয়োজন। এ প্রসঙ্গে মিসরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা জাতিসংঘের সঙ্গে যোগাযোগ করে গাজায় ত্রাণপণ্যের সরবরাহ বাড়ানোর অনুরোধ করেছিলাম। জাতিসংঘ তাতে রাজিও হয়েছে। কিন্তু বাস্তব সত্য হলো, যতদিন গাজায় সংঘাত না থামছে, ততদিন সেখানে ত্রাণ সরবরাহ বাড়ানোও সম্ভব নয়।

আরও পড়ুন: ফের পিটিআইয়ের চেয়ারম্যান হলেন গহর আলী

প্রসঙ্গত, গত ৭ই অক্টোবর ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার নিয়ন্ত্রণকারী গোষ্ঠী হামাসের যোদ্ধারা গাজার উত্তরাঞ্চলীয় ইরেজ সীমান্তে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ১ হাজার ২০০ জন মানুষকে হত্যার পাশাপাশি ২৪০ জন ইসরায়েলি ও বিদেশি নাগরিককে ধরে নিয়ে যায়। অভূতপূর্ব সেই হামলার পর সেদিন থেকেই গাজায় অভিযান শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী।

সূত্র: আরব নিউজ

এসকে/ 

গাজা যুদ্ধবিরতি

খবরটি শেয়ার করুন