সোমবার, ২৪শে জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১০ই আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আম্পায়ারিং নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করলেন হৃদয়

স্পোর্টস ডেস্ক

🕒 প্রকাশ: ০২:৫৯ অপরাহ্ন, ১১ই জুন ২০২৪

#

ছবি: সংগৃহীত

নিউ ইয়র্কের নাসাউ কাউন্টি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গতকালের ম্যাচটি হারার দোষ আসলে কার? বাংলাদেশ চাইলে যেমন নিজেদের দোষ ধরতে পারে তেমনি একই সাথে দোষ ধরা যেতে পারে আম্পায়ারিংয়েরও। খুব কাছে যেয়ে হারা ম্যাচটিতে বাংলাদেশকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকা ব্যাটার তাওহীদ হৃদয় নিজেদের দোষ দেখছেন। তবে নিজেদের দোষের পাশাপাশি আম্পায়ারিং সিদ্ধান্ত নিয়েও তিনি তার অসন্তোষ প্রকাশ করেন। প্রতিভাবান এই ব্যাটারের বিশ্বাস আম্পায়রিং তার দলকে জয়ের সুযোগ থেকে বঞ্চিত করেছে।

চলমান বিশ্বকাপের ২১তম ম্যাচটিতে বিতর্ক শুরু হয় বাংলাদেশের রান তাড়ার ১৭তম ওভারে। ওটনেইল বার্টম্যানের বলে মাহমুদউল্লাহর প্যাডে লেগে ফাইন লেগ বাউন্ডারির দিকে চলে যায় চার রানের জন্য। দক্ষিণ আফ্রিকা এলবিডব্লিউয়ের জন্য আপিল করে এবং অন-ফিল্ড আম্পায়ার আপিল মঞ্জুর করেন। তবে, রিভিউ করার পর সিদ্ধান্তটি ভুল প্রমাণিত হয় এবং আউট বাতিল হয়। ক্রিকেটের নিয়ম অনুযায়ী, আম্পায়ার প্রথমে আউট দিয়েছিলেন বলে বলটি ডেড বলে গণ্য হয় এবং বাংলাদেশ চার রান পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ ঠিক সেই চার রানের ব্যবধানেই হেরে যায়।

‘সত্যি বলতে, এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে এটি আমাদের জন্য ভালো সিদ্ধান্ত ছিল না। আমার দৃষ্টিকোণ থেকে, আম্পায়ার এটি আউট দিয়েছিলেন, তবে এটি আমাদের জন্য খুব কঠিন ছিল। সেই চার রান ম্যাচের চিত্র বদলে দিতে পারতো।’ হৃদয় ম্যাচের পর সাংবাদিকদের বলেন।

হৃদয় আরো কিছু আম্পায়ারিং সিদ্ধান্ত নিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করেন, যার মধ্যে তার দাবি বেশ কয়েকটি ওয়াইড বলও ছিল। ‘আইন আমার হাতে নয়। সেই সময়ে সেই চার রান সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আম্পায়াররা একটি সিদ্ধান্ত নিতে পারেন এবং তারা মানুষ, তাই ভুল করতে পারেন। তারা কয়েকটি ওয়াইডও দেয়নি যা ওয়াইড ছিল। এমন একটি ভেন্যুতে যেখানে কম রান হয়, সেখানে এক বা দুই রান একটি বড় বিষয়। আমি মনে করি সেই চার রান বা দুই ওয়াইড খুব কাছাকাছি ছিল এবং আমি নিজেও আম্পায়ারের কল দ্বারা আউট হয়েছি এবং এখানে আমার বিশ্বাস উন্নতির সুযোগ রয়েছে।’

আরো পড়ুন: পাবজি খেলে বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশ- প্রাইজমানি ৩৫ কোটি টাকা

হৃদয় নিজেই ৩৪ বলে ৩৭ রান করেন, এরপর কাগিসো রাবাদার একটি ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউ আউট হন। রিপ্লেতে দেখা গেছে বলটি মাত্র লেগ স্টাম্পে লেগে যাচ্ছে, যার ফলে আম্পায়ারের কল অনুযায়ী আউট দেওয়া হয়।

ম্যাচটি নিয়ে চিন্তাভাবনা করে, হৃদয় নিজেই ফলাফলের জন্য নিজের ভূমিকার কথাও স্বীকার করেন। ‘আসলে, আমরা সেই স্কোর নিয়ে খুব আত্মবিশ্বাসী ছিলাম এবং সেই অবস্থান থেকে আমাকে ম্যাচটি শেষ করা আসা উচিত ছিল। নতুন ব্যাটারদের জন্য পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নেওয়া কঠিন। সেই অবস্থানে আমাকে ম্যাচটি শেষ করা উচিত ছিল।’

সংকীর্ণ হার এবং বিতর্কিত আম্পায়ারিং সিদ্ধান্তগুলি বাংলাদেশ এবং তাদের ভক্তদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। তবে বাংলাদেশ চাইবে এই বিতর্ক যত দ্রুত সম্ভব ভুলে যেতে।

এসি/  আই.কে.জে

আম্পায়ারিং হৃদয়

খবরটি শেয়ার করুন